স্মার্ট স্কুল ব্যবস্থাপনা

হাবিবুর রহমান তারেক
স্কুল পালিয়ে যে রবীন্দ্রনাথ হওয়া যায় না, সে কথা তো সবারই জানা! তাই বলে কি বন্ধ হয়েছে স্কুল পালানো! তবে এবার স্কুল পালানোর দিন বুঝি ফুরল। স্কুলে ফাঁকি দিলে বা দেরিতে পেঁৗছলে বার্তা পৌঁছে যাবে অভিভাবকের কাছে। তখন নির্ঘাত শাস্তি! এ ভয়েই হয়তো আর কেউ স্কুল পালাবে না। এমন প্রযুক্তিই চালু করেছে রাজউক উত্তরা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মাইলস্টোন কলেজ, ক্যামব্রিয়ান কলেজসহ বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।
রাজউক উত্তরা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী নাজিয়া জামানের মা নাজমুন নাহার জানান, একদিন নাজিয়া ক্লাস শুরু হওয়ার ১০ মিনিট পর স্কুলে উপস্থিত হয়- এ খবর তিনি সঙ্গে সঙ্গেই জানতে পারেন মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে। মেয়ে স্কুল থেকে ফেরার পর জানায়- বান্ধবীর জন্য অপেক্ষা করতে গিয়েই দেরি হয়েছে। ‘এরপর সতর্ক করে দিই- আর কখনো যেন এমন না হয়।’
শুধু কি স্কুল পালানো? শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ফি দেওয়ার কথা বলে বাসা থেকে টাকা নিয়ে স্কুলে জমা না দিলেও কিন্তু ধরা পড়ে যেতে হবে। রিপোর্ট কার্ড পেয়ে নিজেই স্বাক্ষর দিয়ে স্কুলে জমা দেবে, সে সুযোগও কিন্তু নেই। এক কথায়, শিক্ষার্থীর পূর্ণাঙ্গ ও হালনাগাদ একাডেমিক তথ্য- যেমন : উপস্থিতি, পরীক্ষার ফল, ফি, জরুরি নোটিশ ইত্যাদি জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে অভিভাবকদের।
এসব সম্ভব হচ্ছে কম্পিউটারাইজড শিক্ষা ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি এডুস্মার্টের কল্যাণে। প্রযুক্তিটির কারিগরি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান এডুস্মার্ট ডটকমের বিপণন বিভাগের প্রধান শরিফ-উল-আলম জানান, এ পদ্ধতি শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকের মধ্যে তাৎক্ষণিক ও সহজ যোগাযোগব্যবস্থা তৈরি করেছে। অভিভাবকরা এ সেবা পাচ্ছেন মোবাইল ফোনে খুদেবার্তা (এসএমএস) এবং ই-মেইলের মাধ্যমে।
উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মঈনুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তাও সয়ংক্রিয়ভাবে এসএমএসের মাধ্যমে পাঠানো যাচ্ছে।’
রাজউক উত্তরা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্র শফিকুর রহমানের বাবা শহীদুর রহমান খান বলেন, ‘ছেলের পড়াশোনার খোঁজ নিতে পারছি বাসায় বসেই।’
রাজউক উত্তরা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কর্নেল এ এস এম মুশফিকুর রহমান বলেন, ‘কিছু দিন আগে আমরা একটি পরীক্ষা স্থগিতকরণের নোটিশের বার্তা আগের দিন রাতে অভিভাবকদের মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পাঠিয়েছিলাম। এটা সম্ভব হয়েছে এ আধুনিক সেবার (এডুস্মার্ট) মাধ্যমে।’
লে. কর্নেল মঈনুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, যেকোনো স্কুল-কলেজ খুব সহজেই এ সেবা চালু করতে পারে।

শেয়ার :

|

আরো পোস্ট

মন্তব্য করুন