তার আগে চাই টোফেল সনদ

বিদেশে পড়াশোনার কথা ভাবার আগে দরকার ভাষা দক্ষতার সনদ। এটা ছাড়া ভিসা তো দূরের কথা, বেশির ভাগ বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনেরও সুযোগ নেই। অনেক দেশেই এ দক্ষতার সনদ হিসেবে চাওয়া হয় টোফেল স্কোর। টোফেলে ভালো স্কোর কঠিন কোনো বিষয় নয়। বিস্তারিত জানাচ্ছেন হাবিবুর রহমান তারেক
ইংরেজি ভাষা দক্ষতা প্রমাণের পরীক্ষা ‘টেস্ট অব ইংলিশ অ্যাজ এ ফরেন ল্যাংগুয়েজ’ বা টোফেল। যেসব দেশের নাগরিকদের প্রথম ভাষা ইংরেজি নয়; তাদের পড়াশোনা, চাকরি, প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভিসা আবেদন করতে অনেক দেশেই ইংরেজি ভাষা দক্ষতা প্রমাণের সনদ লাগে। বর্তমানে যেসব ভাষা দক্ষতা যাচাইয়ের পরীক্ষা প্রচলিত আছে, এর মধ্যে টোফেল অন্যতম। ১৯৬৪ সালে এ পরীক্ষা পদ্ধতি চালু হওয়ার পর ‘এডুকেশনাল টেস্টিং সেন্টার’ বা ইটিএস (www.ets.org)-এর অধীনে এ পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের আড়াই কোটিরও বেশি শিক্ষার্থী টোফেল পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। আমেরিকা, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানিসহ বিশ্বের ১৩০টিরও বেশি দেশে শিক্ষাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ভিসা আবেদনের ক্ষেত্রে ‘ভাষা দক্ষতার সনদ’ হিসেবে টোফেল গ্রহণ করা হচ্ছে।
সাধারণত তিন ধরনের টোফেল পরীক্ষা পদ্ধতি চালু আছে_ইন্টারনেট বেসড টেস্ট (ইবিটি), পেপার বেসড টেস্ট (পিবিটি) এবং কম্পিউটার বেসড টেস্ট (সিবিটি)। টোফেল সনদের মেয়াদ দুই বছর।
পরীক্ষা ইন্টারনেটে
বাংলাদেশে এখন ইন্টারনেট বেসড টেস্ট অর্থাৎ ‘ইবিটি’ পদ্ধতিতেই পরীক্ষা দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। প্রথমবারের মতো এ পদ্ধতি (ইবিটি) চালু হয় ২০০৫ সালে। এরপর থেকে কাগজে-কলমে টোফেলের জায়গা দখল করে ইন্টারনেট-নির্ভর পদ্ধতি। ইবিটির স্কোর শূন্য থেকে ১২০ পয়েন্ট পর্যন্ত। এ পরীক্ষার চারটি টাস্ক বা অংশ_রিডিং, লিসেনিং, স্পিকিং ও রাইটিং। প্রতিটি অংশের স্কোর ৩০ পয়েন্ট। রিডিং টাস্কে তিন থেকে পাঁচটি প্যাসেজ (প্রায় ৭০০ শব্দের) থাকে, এর মধ্য থেকে প্রশ্ন করা হয় ১২ থেকে ১৪টি। এ অংশে পরীক্ষার্থীর শব্দ ও ভাষাজ্ঞান যাচাই করা হয়। এরপর ‘লিসেনিং’ টাস্ক। শুনে দ্রুত বোঝার ক্ষমতা যাচাই হয় এ অংশে। এতে সাধারণত একটি বিষয় নিয়ে একাধিক ব্যক্তির কথোপকথন বা আলোচনার অডিও শোনানো হয়। একবার শুনেই পরীক্ষার্থীকে নিজের বুদ্ধিমত্তা দিয়ে উত্তর দিতে হয়। রিডিং ও লিসেনিং টাস্কের প্রতিটির জন্য পরীক্ষার নির্ধারিত সময় ৬০ থেকে ১০০ মিনিট। স্পিকিং টাস্কে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দিতে হয়, সাধারণত ২০ মিনিটের বেশি সময় নেওয়া হয় না এ টাস্কে। সবশেষে রাইটিং টাস্কের জন্য বরাদ্দ থাকে ৫৫ মিনিট। এ টাস্কে পরীক্ষার্থীর ইংরেজিতে গুছিয়ে লেখার যোগ্যতা যাচাই করা হয়।
অন্যদিকে কাগজে-কলমে পরীক্ষা পদ্ধতি অর্থাৎ পেপার বেসড টেস্টে (পিবিটি) সব অংশ মিলিয়ে স্কোর ৩১০ থেকে ৬৭৭ পর্যন্ত। এর মধ্যে ‘লিসেনিং’ ও ‘স্ট্রাকচার’ অংশের প্রতিটির স্কোর ৩১ থেকে ৬৮ এবং ‘রিডিং’ অংশের স্কোর ৩১ থেকে ৬৭।
যেভাবে পরিচালিত হয়
বিশ্বে মোট ১৪টি আঞ্চলিক কেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্রের অধীনে সারা বিশ্বে টোফেল পরীক্ষা পরিচালনা করা হয়। বাংলাদেশে টোফেল পরীক্ষার দিকনির্দেশনা ও পরিচালনা হয় মালয়েশিয়ায় অবস্থিত রিজিওনাল অফিস থেকে। পরীক্ষা নেয় আন্তর্জাতিক পরীক্ষা বা টেস্ট পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান প্রমেট্রিক এবং ভিইউই (ভার্চুয়াল ইউনিভার্সিটি এন্টারপ্রাইজ)। উল্লেখ্য, প্রমেট্রিক টোফেল ছাড়াও বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভেন্ডর সার্টিফিকেশনের পরীক্ষা (তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক আন্তর্জাতিক পরীক্ষা) পরিচালনা করছে। ইটিএস কর্তৃপক্ষ এসব পরীক্ষা পরিচালনা প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় ও স্থানীয় সেন্টারের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের নিবন্ধন ও টোফেল টেস্ট নেয়। আমেরিকান সেন্টারের ছাত্র উপদেষ্টা আরেফিন জাহান জানান, শুধু ঢাকাতেই টোফেল পরীক্ষা দেওয়ার জন্য পাঁচটি অনুমোদিত কেন্দ্র আছে।
রেজিস্ট্রেশন করতে হবে দুইভাবে
টোফেল টেস্টের অন্তত চার সপ্তাহ আগে রেজিস্ট্রেশন করতে হয়। লোকাল টেস্ট সেন্টারে গিয়ে অথবা অনলাইনে রেজিস্ট্রেশনের কাজটি সেরে ফেলতে পারেন। রেজিস্ট্রেশন-সংক্রান্ত তথ্য পাবেন ইটিএসের এই অফিশিয়াল সাইটে_ www.ets.org/toefl/ibt/register। অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ফি ১৫০ ডলার। তবে সরাসরি সেন্টারে জমা দিতে চাইলে সার্ভিস চার্জসহ ১২ হাজার ১০০ টাকা গুনতে হবে_জানান প্রমেট্রিকের অনুমোদিত টেস্ট সেন্টার আমেরিকান অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের (এএএ) নির্বাহী পরিচালক জেমস এস বিশ্বাস। অনলাইনে পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশনের আগে ইটিএসের ওয়েবসাইটে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে।
ওয়েব লিংক থেকে ‘সাইন আপ’ বাটনে ক্লিক করলে ওয়েবসাইটে পূরণযোগ্য একটি ফরম আসবে। প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে ‘সাবমিট’ ক্লিক করলে আপনার একটি অনলাইন অ্যাকাউন্ট তৈরি হবে। এ অ্যাকাউন্টে লগ ইন করলে রেজিস্ট্রেশনের অপশন পাবেন। রেজিস্ট্রেশন ফি জমা দেওয়ার কাজটিও সহজেই অনলাইনে করতে পারবেন। এ জন্য দরকার আমেরিকান এঙ্প্রেস, মাস্টার ও ভিসা ক্রেডিট কার্ড। মনে রাখবেন_পূরণকৃত নাম, জন্ম তারিখ যেন সার্টিফিকেট অনুযায়ী হয়। পরীক্ষার দিনক্ষণ রেজিস্ট্রেশন করার সময়ই নির্বাচন করতে হয়। যদি কোনো কারণে পরীক্ষার দিনক্ষণ পরিবর্তন করতে চান, তাহলে একইভাবে অনলাইন অ্যাকাউন্ট থেকে করতে পারবেন। এ জন্য বাড়তি খরচ হবে ৬০ ডলার। প্রতি মাসেই টোফেল টেস্ট দেওয়ার সুযোগ আছে। কোনো শিক্ষার্থী যদি কাঙ্ক্ষিত স্কোর তুলতে না পারেন, তাহলে একাধিকবার টেস্ট দিতে পারবেন, তবে বছরে পাঁচবারের বেশি নয়।
প্রস্তুতি ও পরামর্শ
টোফেল পরীক্ষার আগে বাসায় বসে অথবা কোচিংয়ের মাধ্যমেই প্রস্তুতি নিচ্ছে অনেকেই। আমেরিকান অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের (এএএ) নির্বাহী পরিচালক জেমস এস বিশ্বাস বলেন, ‘নিয়মিত ইংরেজি চর্চার বিকল্প নেই। কোচিং শিক্ষার্থীর ইংরেজি চর্চায় প্রয়োজনীয় সহায়ক হিসেবে কাজ করে।’ ঢাকার আমেরিকান দূতাবাস পরিচালিত আমেরিকান সেন্টার লাইব্রেরি ইংরেজি শিক্ষার জন্য সহায়ক বলে জানান তিনি। ইংরেজিবিষয়ক প্রচুর বই ও সিডি-ডিভিডি পাওয়া যাবে এ লাইব্রেরিতে। এ ছাড়া এখানে শিক্ষার্থীদের টোফেলসহ উচ্চশিক্ষাবিষয়ক পরামর্শ দেওয়ার জন্য আছে ‘স্টুডেন্ট অ্যাডভাইজার সেন্টার’।
টোফেল চর্চার জন্য বই সংগ্রহ করাও জরুরি। বিদেশি লেখকের বই খুব কম মূল্যে পাওয়া যায় লাইব্রেরিগুলোতে। রাজধানীর নীলক্ষেতের হক লাইব্রেরির বিক্রেতা মানিক বলেন, ‘সিডিসহ বেশ কিছু ইংরেজি ও বাংলায় লেখা দেশি-বিদেশি টোফেলের বই পাওয়া যায়। ইংরেজিতে লেখা বই বেশি চলে।’ টোফেল বিষয়ে লেখা ব্যারনস (২৪০ টাকা), পিটারসন (২৫০ টাকা), কাপলান (২৮০ টাকা), প্রিসটন (৩৫০ টাকা), নোভা (৩০০ টাকা) বইগুলোর চাহিদা বেশি। এ ছাড়া বাংলায় লেখা কিছু দেশি বই পাওয়া যাচ্ছে। টোফেলের প্রস্তুতি কোর্সে ভর্তি হলে কোর্স ম্যাটেরিয়াল বা শিক্ষা উপকরণ (বই, সিডি ইত্যাদি) ফ্রি দিচ্ছে বিভিন্ন কোচিং সেন্টার। তিন মাস মেয়াদি এসব কোর্সের ফি কোচিং সেন্টারভেদে আট থেকে ১০ হাজার টাকা।
যোগাযোগ করতে পারেন
ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস পরিচালিত আমেরিকান সেন্টারের ‘এডুকেশনাল অ্যাডভাইজিং সেন্টার’ ও ‘আমেরিকান সেন্টার লাইব্রেরির ঠিকানা : বাড়ি-১১০, রোড-২৭, বনানী, ঢাকা। ফোন: ৮৮৩৭১৫০-৪। ওয়েব : www.educationusa.info/ AmericanCenterBangladesh, http://dhaka.usembassy.gov/ advising.html এ ছাড়া টোফেলবিষয়ক পরামর্শ, পরীক্ষাপূর্ব প্রস্তুতি কোর্সে ভর্তি এবং রেজিস্ট্রেশন-সংক্রান্ত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন প্রমেট্রিকের অনুমোদিত টেস্ট সেন্টারে। ঠিকানা : বাড়ি-১৪৫, রোড-১৩বি, ব্লক-ই, বনানী। অনলাইনে টোফেল চর্চা করতে এ সাইট (http://toeflpractice.ets.org) সহায়ক হবে। টোফেল সম্পর্কে আরো জানতে চোখ রাখুন ইটিএসের অফিশিয়াল সাইএট-www.ets.org/toefl।
সূত্র: কালের কণ্ঠ । সিলেবাসে নেই । ২১ ডিসেম্বর, ২০১০

  • শিক্ষাবিষয়ক দরকারি তথ্য তাৎক্ষণিক পেতে আমাদের ফেইসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখুন : www.facebook.com/EducationBarta
  • Comments are closed.