৭ দফা দাবি জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি

অাজ (১৭/০৯/২০১৫) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে ৭ দফা দাবি জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি -এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল্যাহ সরকার। উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি সভাপতি মোঃ নুরুজ্জামান আনসারী, সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান বাচ্চু, ইউ.এস খালেদা, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান মনির, শেখ আব্দুস সালাম মিয়া, মোঃ মোজ্জাম্মেল হক, আব্দুস ছবুর প্রমুখ।
প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির ৭ দফা দাবি সমূহ :
১। জাতীয় শিক্ষানীতি মোতাবেক প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সকল স্তরের শিক গনকে স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রদান।
২। জাতীয় বেতন স্কেলে প্রধান শিক্ষকগণকে ১০তম গ্রেডে (১৬,০০০ টাকা) এবং সহকারী শিক্ষকগণকে ১১তম গ্রেডে (১২,৫০০ টাকা) বেতন স্কেল পুনঃনির্ধারণ করে বৈষম্য দূর করা।
৩। অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেলে পূর্বের ন্যায় সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল প্রথা বহাল রাখা।
৪। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ০৯/০৩/২০১৪ তারিখ প্রধান শিক্ষককে দ্বিতীয় শ্রেণির পদ মর্যাদা ঘোষণার সুদীর্ঘ প্রায় দুই বছরেও বেতন স্কেল বাস্তবায়ন হয়নি। প্রাথমিক ও গণশিা মন্ত্রণালয়ের স্মারক নং-৩৮.০০০৮.০৩৮.০০.০০.০০২.২০১৫-৫০৪ তারিখ ১২/০৮/২০১৫ এবং প্রধান হিসাব রক কর্মকর্তা, প্রথমিক ও গণশিা মন্ত্রণালয় এর সিএও/প্রা.গ.ম/ পৃষ্ঠাংকন/১৩৭ তারিখ ২০/০৮/১৫ খ্রিঃ মোতাবেক প্রধান শিকদের বেতন দ্রুত নির্ধারণের ব্যবস্থা করা।
৫। সহকারী শিক্ষক পদকে এন্ট্রিপদ ধরে পরিচালক পর্যন্ত ১০০% বিভাগীয় পদোন্নতির ব্যবস্থা করা। সদ্য জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিকদের গেজেট প্রকাশসহ বিভিন্ন সমস্যা দ্রুত সম্পন্ন করা।
৬। দীর্ঘ দিন ধরে প্রধান শিক্ষক পদে সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতি বন্ধ থাকায় কয়েক হাজার বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদ শূণ্য, তাই বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। দ্রুত পদোন্নতির মাধ্যমে প্রধান শিকের শূণ্য পদ পূরণ করা প্রয়োজন।
৭। প্রচলিত নিয়ামানুসারে সারা দেশে ৬৫% প্রধান শিক্ষক পদ পূরণ হয় সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতির মাধ্যমে। পদোন্নতি প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকগণকে সরাসরি নিয়োগ প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের ন্যায় বেতন স্কেল প্রদান করা।
আন্দোলনের কর্মসূচি :
১। ১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫খ্রিঃ তারিখ সারা দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত দুই (২) ঘন্টা করে কর্ম বিরতি পালন।
২। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৫খ্রিঃ তারিখ সারা দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পুর্নদিবস কর্ম বিরতি পালন।
৩। ১২ অক্টোবর ২০১৫ খ্রিঃ তারিখ সকাল ১০ঘটিকায় জাতীয় প্রেসকাব চত্বর, ঢাকায় মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান।
১০ অক্টোবর ২০১৫ তারিখের মধ্যে দাবি পূরণ না হলে-
১২ অক্টোবরের ২০১৫খ্রিঃ মানববন্ধন কর্মসূচী থেকে প্রয়োজনে বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীা, প্রাথমিক শিা সমাপনী পরীা বর্জন ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক মহাসমাবেশ ডেকে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।

  • শিক্ষাবিষয়ক দরকারি তথ্য তাৎক্ষণিক পেতে আমাদের ফেইসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখুন : www.facebook.com/EducationBarta
  • মন্তব্য করুন

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.